আজকের পত্রিকাtitle_li=বাংলাদেশtitle_li=মাগুরা সদর মাগুরায় ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি-সম্পাদকসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল

মাগুরায় ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি-সম্পাদকসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল

মাগুরানিউজ.কম:

mn
বিএনপির হরতাল-অবরোধ চলাকালে মাগুরা-যশোর সড়কে ট্রাকে পেট্রোলবোমা মেরে ৫ বালু শ্রমিক নিহতের ঘটনায় করা মামলার তদন্ত শেষে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি রাজিব আহসান, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হক এবং মাগুরা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমেদসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দিয়েছে পুলিশ।
 
মামলার তদন্ত শেষে ২৬ এজাহার নামীয় আসামীর মধ্যে ৭ জনকে অব্যাহতি দিয়ে ১৯ জন এবং ৩ জনের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে সর্বমোট ২৩ জনের নামে অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে।
 
মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ অভিযোগপত্র জমা দেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমাউল হক।
 
মামলার অন্য উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন- জেলা বিএনপির সহসভাপতি মনোয়ার হেসেন খান, জেলা জামায়াতের আমির আলমগীর বিশ্বাস, সেক্রেটারি মুস্তার বাকের, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান ও সদর জামায়াতের আমির অধ্যাপক ফারুক হোসেন, মাগুরা জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম, পৌর কাউন্সিলর ও পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি কিজিল খান, জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক অ্যাড. মিজানুর রহমান।
এছাড়া আসামী হিসাবে রয়েছে রবিউল ইসলাম, আবু তাহের সবুজ, জালাল মোল্যা, মাহাবুর হোসেন, আলামিন, রাসেল মন্ডল, জাকারিয়া শেখ, বাদশা মিয়া, জামায়াত নেতা মুশতার শেদ বিল্লা বাকের, এরশাদ, এ্যাডঃ সজল, বাশি ও হিটু বিশ্বাস। প্রধান আসামিসহ অধিকাংশই পলাতক রয়েছেন।
 
পুুলিশ সুপার একেএম এহসান উল্লাহ জানান, দীর্ঘ তদন্ত এবং আসামিদের জবানবন্দি শেষে তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের ওসি ইমাউল হক দুপুরে ২৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেছেন। এ মামলায় গ্রেফারকৃত ৩ আসামি সাদ্দাম, সবুজ ও রাসেল আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।
 
উল্লেখ্য, বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলের অবরোধ চলাকালে গত ২১ মার্চ সন্ধ্যায় মাগুরা-যশোর সড়কের মঘীরঢালে ট্রাকে পেট্রোলবোমা হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে ট্রাকের চালক, হেলপাসহ ৯ শ্রমিক দগ্ধ হয়। সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে ওই রাতেই রওশন নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ট্রাকচালক ইমরান, শ্রমিক মতিন, শাহিন, শাকিল মারা যায়। পর দিন এএসআই আব্দুল সালাম সদর থানায় ২৬ জনকে আসামি করে ২০০৯ সালের সন্ত্রাসবিরোধী আইনে একটি মামলা করেন। পরে মামলাটি তদন্তের জন্য ডিবিতে পাঠানো হয়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

মে ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি রবি
« এপ্রি    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  

মাগুড়া সদর

ফেসবুকে আমরা

Pages