অপরাধtitle_li=আজকের পত্রিকাtitle_li=মহম্মদপুর মাগুরার এক ইউপি সদস্য দেখালেন তার ক্ষমতার দাপট

মাগুরার এক ইউপি সদস্য দেখালেন তার ক্ষমতার দাপট

মাগুরানিউজ.কমঃ

11034211_16192003416452ui48_4io267031593851699161_n

মাগুরায় মনের আনন্দে তিনি কেটে সাফ করে চলেছেন একের পর এক গাছ। হাজারেরও বেশি গাছ ইতিমধ্যেই কাটা সারা বলে সুবিধাভোগীদের দাবি। তিনি একজন ইউপি সদস্য। তিনি কাটলে কার কী অাছে বলার? নির্বিঘ্নে যখন হাজার গাছ খতম, তখন বোঝাই যায় তার দাপট কতখানি!

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা সদরের রায়পুর মোড় থেকে কাশিপুর পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার সড়কের দুই পাশের সহস্রাধিক মূল্যবান গাছ প্রকাশ্যে কেটে নেওয়া এই ইউপি সদস্যের নাম সিরাজুল ইসলাম। এক সপ্তাহ ধরে গাছ কাটা চললেও প্রশাসন নিশ্চুপ বলে স্থানীয়রা জানান। এই গাছের মালিক বন বিভাগ। এর সুফলভোগীর দাবিদার স্থানীয় সামাজিক বনায়ন সমবায় সমিতির সদস্যরা।

mn

মহম্মদপুরের স্থানীয় কতিপয় সাংবাদিক জানান, বুধবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পান ইউপি সদস্য সিরাজের নেতৃত্বে শ্রমিকরা গাছ কেটে ভ্যানে তুলছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংবাদকর্মীদের সামনে উত্তেজিত হয়ে কিছু বলবেন না বলে জানান মহম্মদপুর সদর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের এই ইউপি সদস্য।

সাংবাদিকরা জানান তারা দেখতে পান সড়কের দুই পাশে কেটে নেওয়া গাছের গুঁড়ি পড়ে আছে। রেইনট্রি, মেহগনি, শিশু, নিম, বাবলা ও গামারি গাছ কেটে নেওয়া হয়েছে। বসুরধুলজুড়ি বাজারের পাশের সড়কে পাঁচ-ছয়টি মূল্যবান গামারি ও রেইনট্রি গাছ কাটছেন ১০-১২ জন শ্রমিক। ভ্যানযোগে গাছ অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছেন।

Tree11435133447

সময়ের আগেই অপরিপক্ব কাছ জোর করে কেটে ফেলায় সামাজিক বনায়ন সমিতির ১১০ জন সদস্য চরম ক্ষতির শিকার হয়েছেন। বিষয়টি তারা ইউএনও, পুলিশ ও বন বিভাগের কর্মকর্তাদেরও জানিয়েছেন।

জানা গেছে, মহম্মদপুর উপজেলা সদরের রায়পুর মোড় থেকে-কাশিপুর পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে স্থানীয় বসুরধুলজুড়ি সামাজিক বনায়ন সমিতি প্রায় ১০ বছর আগে বিভিন্ন বনজ ও ফলদ গাছের চারা রোপণ করে। বন বিভাগের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী গাছ পরিপক্ব হলে গাছ বিক্রির টাকা সমিতির ১১০ জন সুফলভোগী শতকরা ৬৫ ভাগ ও বন বিভাগ ৩৫ ভাগ হারে ভাগ পাওয়ার শর্ত রয়েছে।

সামাজিক বনায়ন সমিতির সভাপতি বসুরধুলজুড়ি গ্রামের বাসিন্দা লোকমান মোল্যা বলেন, ‘আমরা অনেক কষ্টে তিল তিল করে গাছগুলো বড় করেছি। এখন ইউপি সদস্য সিরাজ প্রভাব খাটিয়ে লোকজন নিয়ে গাছগুলো বিক্রি করে দিচ্ছেন। এতে তারা চরম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।’

গাছ বহনকারী ভ্যানচালক আলী মোর্তজা জানান, সিরাজ মেম্বার গাছগুলো পার্শ্ববর্তী রায়পুর গ্রামের কাঠের ব্যাপারী আসাদ মোল্যার কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। এক সপ্তাহ ধরে ছোট-বড় প্রায় এক হাজার গাছ কেটে বিক্রি করেছেন। যার বাজার দর আনুমানিক দেড় লাখ টাকার বেশি।

ব্যাপারী আসাদ মোল্যা জানান, ‘আমার কাছে খড়ি (জ্বালানি কাঠ) বিক্রি করবে এই শর্তে শ্রমিক লাগিয়ে আমি সিরাজ মেম্বারকে গাছ কেটে দিচ্ছি। গাছের গুঁড়ি তিনি (ইউপি সদস্য) বিক্রি করবেন।’

মাগুরা বন বিভাগের কর্মকর্তা মোহদ্দীন হোসেন জানান, ‘সামাজিক বনায়নের গাছ কাটার অনুমতি দেওয়া হয়নি। ইউপি সদস্য সিরাজ অন্যায়ভাবে গাছ কাটছেন।’

মহম্মদপুর থানার ওসি আতিয়ার শেখ বলেন, ‘সিরাজ মেম্বারকে আটকের চেষ্টা করছে পুলিশ।’

মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. কামরুল হাসান বলেন, অভিযুক্ত ইউপি সদস্যকে আটকের জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছি।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ডিসেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি রবি
« নভে    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১

মাগুড়া সদর

ফেসবুকে আমরা

Pages